টি.এস.এলিয়ট-এর কবিতা [ ১৮৮৮ – ১৯৬৫’] ‘ফাঁপা মানুষেরা’ (The Hollow Men) । অনুবাদ : মলয় রায়চৌধুরী

index

মিস্টাহ্ কুট্জ্–সে মরেছে 

বেচারা বুড়োর জন্যে এক পেনি 

 

আমরা সবাই ফাঁপা মানুষ

আমরা সবাই ঠুঁশো মানুষ

একসঙ্গে হেলান দিয়ে

মস্তকাংশ খড়ে ভরা। হায়রে !

আমাদের শুকনো স্বর, যখন

সবাই মিলে ফিসফিসোই

চুপচাপ আর মানেহীন

যেন শুকনো ঘাসে বইছে হাওয়া

বা ভাঙা কাচে  ইঁদুরের ঠ্যাঙ

শুকনো মদের ভাঁড়ারেতে

.

আঙ্গিকহীন আদলখানা, ছায়ার মাত্রা রঙহীন,

তেজ পক্ষাঘাতগ্রস্ত, অঙ্গবিক্ষেপ চলনহীন;

.

যারা সবাই পৌঁছে গেছে

তাক-করা চাউনি-চোখে, মৃত্যুর আরেক রাজ্যে

আমাদের মনে রেখো – রাখতে পারলে – হারিয়ে গিয়ে নয়

উগ্র আত্মার মতো, কিন্তু কেবল

যেন ফাঁপা মানুষেরা

ঠুঁশো মানুষেরা

 

 

২.

সাহস করি না স্বপ্নেও চোখ মেলাবার

মৃত্যুর স্বপ্নরাজ্যে

হয় না এরা আবুর্ভূত :

সেখানে চোখগুলোসব

ভাঙা থামে সূর্য-আলো

সেখানে, একটা গাছ দুলছে

আর গলার আওয়াজগুলো

হাওয়ার গানে

আরও দূরবর্তী আর আরও গুরুগম্ভীর

একটি বিলীন তারার চেয়ে ।

.

দিও না আমায় কাছে যেতে

মৃত্যুর স্বপ্নরাজ্যে

নিতে দিও তবু আমায়

অমন সুচিন্তিত গুপ্তবেশ

ইঁদুর-জামা, কাকের চামড়া, কাকতাড়ুয়া

একটা মাঠে

তেমনি আচরণ করব যেমন করে হাওয়া

নয় কাছাকাছি–

.

সেই শেষ সাক্ষাৎ নয়

গোধূলীর রাজ্যে

 

৩.

এটা সেই মরা জমি

এটা ক্যাকটাস জমি

এখানে পাথর-প্রতিমাগুলো

উত্তোলিত হয়, এখানে তারা পায়

এক মরা মানুষের হাতের মিনতি

একটি বিলীন তারার ঝিকিমিকির নিচে ।

.

এটা এই রকম

মৃত্যুর আরেক রাজ্যে

একা জেগে উঠে

যখন আমরা সে সময়ে

কাঁপছি কোমলভাবে

যে-ঠোঁটেরা চুমু খাবে

ভাঙা পাথরকে প্রার্থনায় ।

 

৪.

চোখগুলো এখানে নেই

এখানে কোনো চোখ নেই

মরতে-থাকা তারাদের এই উপত্যকায়

এই ফাঁপা উপত্যকায়

আমাদের হারানো রাজ্যের এই ভাঙা চোয়ালে

.

মিলিত হওয়ার এই শেষতম স্হানে

আমরা একই সঙ্গে হাতড়াই

আর আলাপ এড়াই

জড়ো হয়েছি স্ফীত নদীর এই তীরে

.

দৃষ্টিহীন, যদি না

চোখগুলো আবার দেখা দেয়

যেন সেই অবিরত নক্ষত্র

বহুস্তর পাপড়ির গোলাপ

মৃত্যুর গোধূলী রাজ্যের

একমাত্র আশা

ফাঁকা মানুষের।

 

৫.

এখানে আমরা কণ্টকী নাশপাতি ঘিরে পাক খাই

কণ্টকী নাশপাতি কণ্টকী নাশপাতি

এখানে আমরা কণ্টকী নাশপাতি ঘিরে পাক খাই

ভোর পাঁচটায়। 

.

ভাবকল্প ও

বাস্তবের মাঝে

চলন ও

কাজের মাঝে

ছায়া নেমে আসে

  কেননা রাজ্য তো আপনরই

.

ধারণা ও

সৃষ্টির মাঝে

আবেগ ও

সাড়ার মাঝে

ছায়া নেমে আসে

  জীবন বড়োই দীর্ঘ

.

আকাঙ্খা ও

অঙ্গবিক্ষেপের মাঝে

শক্তি ও

অস্তিত্বের মাঝে

সত্তা ও

উৎরাইয়ের মাঝে

ছায়া নেমে আসে

   কেননা এ রাজ্য তো আপনারই 

.

কারণ আপনারই

জীবন হলো

কারণ আপনারই হলো এই

.

এভাবেই বিশ্বের অবসান হয় 

এভাবেই বিশ্বের অবসান হয় 

এভাবেই বিশ্বের অবসান হয় 

নয়কো এক বিস্ফোরণে বরং এক ঘ্যাঙানিতে

 

About anubadak

আমি একজন অনুবাদক । এতাবৎ রেঁবো, বদল্যার, ককতো, জারা, সঁদরা, দালি, গিন্সবার্গ, লোরকা, ম্যানদেলস্টাম, আখমাতোভা, মায়াকভস্কি, নেরুদা, ফেরলিংঘেট্টি প্রমুখ অনুবাদ করেছি ।
This entry was posted in T.S.Eliot and tagged . Bookmark the permalink.

1 Response to টি.এস.এলিয়ট-এর কবিতা [ ১৮৮৮ – ১৯৬৫’] ‘ফাঁপা মানুষেরা’ (The Hollow Men) । অনুবাদ : মলয় রায়চৌধুরী

  1. Debnath Chakraborty বলেছেন:

    অসামান্য অনুভূতি ।

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s